বিশ্বে প্রথমবারের মতো,সূর্যের আলো আর আয়না দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন!

225

জীবাশ্ম জ্বালানির বিকল্প শক্তি হিসেবে সূর্যের আলো ব্যবহারের এক নতুন প্রকল্পে বিশ্বে প্রথমবারের মতো বিনিয়োগ করেছেন মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও শীর্ষ ধনী বিল গেটস। এর জন্য তিনি পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হেলিওজেনের বিনিয়োগকারীদের কাতারে যোগ দিয়েছেন। হেলিওজেন হচ্ছে বিশ্বের প্রথম প্রতিষ্ঠান, যেটি ভারী শিল্পের প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য কার্বন নিঃসরণ ছাড়াই সূর্যের আলোর মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে পানি থেকে এক হাজার ৫০০ সেলসিয়াস তাপমাত্রায় হাইড্রোজেন কণাকেও পৃথক করে জীবাশ্মমুক্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন কর যাবে। এটি দিয়ে বাড়িঘর উষ্ণ, গাড়ি ও কল-কারখানা চালানো যাবে। ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হেলিওজেনের প্রধান নির্বাহী বিল গ্রস জানান, এই প্রতিষ্ঠানটি প্রযুক্তিগত অগ্রগতিকে প্রতিনিধিত্ব করে যেটি বিশ্বের শিল্প ও যানবাহনের মাধ্যমে নির্গমন হওয়া ৭৫ শতাংশ কার্বণকে ঠেকাবে। নির্ধারিত বস্তুটির ওপর সূর্যের আলোর প্রতিফলন ঘটাতে প্রতিষ্ঠানটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে বিশাল আকারের বিপুল সংখ্যক আয়না বিন্যাস করবে। এর আগে বাণিজ্যিক সোলার পদ্ধতি যে পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদিত হতো এর মাধ্যমে তার প্রায় তিন গুণ বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদিত হবে। গ্রস জানান, স্বল্প খরচে উচ্চ তাপামাত্রা ব্যবহার করে তাদের প্রতিষ্ঠান জলবায়ু সংকট সমাধানে অর্থবহ অংশগ্রহণের সুযোগ দিচ্ছে। প্রযুক্তির মাধ্যমে তারা তাপমাত্রা ব্যবহার করে এতোটাই বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারবেন যে গ্রিন হাউজ গ্যাস নির্গমন ছাড়াই সিমেন্ট কারখানা পরিচালনা করা সম্ভব হবে। তেল ও কয়লার পর বিশ্বে দূষণের তৃতীয় উপাদান হচ্ছে সিমেন্ট। উন্নত দেশগুলোতে নগরায়ন ও অর্থনৈতিক উন্নতির ফলে এর ব্যবহার বেড়েছে।