প্রতিশ্রুতি দিলে সেটা কেনো জানি হয়ে যায়

61

ঈদ মুক্তি পেয়েছে অনন্ত জলিলের ‘দিন দ্য ডে’। বরাবরের মতো এবারও তার সঙ্গী হয়েছেন বর্ষা। মুক্তির পর থেকে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন সময় দর্শকের সঙ্গে বসে সিনেমাটি দেখেছেন এই তারকা দম্পতি। তারই অংশ হিসেবে গতকাল রাজধানীর যমুনা ব্লকবাস্টারে ড্রিম ফর ডিজঅ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনের শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য ‘দিন দ্য ডে’র বিশেষ শো-এর আয়োজন করা হয়েছিলো। সেখানে হাজির হয়েছিলেন অনন্ত জলিল ও বর্ষা।

সেখানে অনন্ত জলিল বলেন, ‘এক ভাই বললেন, তার ক্যানসার হয়েছে। কেমো দিতে হয়। আরও অনেকের অনেক সমস্যা। প্রতিদিন আমার বাসায় এমন অনেকেই চিকিৎসার সাহায্যের জন্য যান। আমি দেশে না থাকলে কীভাবে জানি উনারা জেনে যায়। অথবা আমার দারোয়ান বলে দেয়, স্যার বাসায় নেই। আমি আল্লাহর কাছে চাই, হে আল্লাহ আপনি আমাকে আরও কিছু অর্থ দিলে আমি মানুষের সেবা করতে পারতাম। গার্মেন্টস ব্যবসা এখন অনেক চ্যালেঞ্জিং। আর সিনেমা বানাই নিজেদের পকেটের টাকা দিয়ে। এখন সিনেমার বাজার ভালো হচ্ছে। সিনেমা থেকে কিছু টাকা আসলে মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারবো। আর ব্যবসা থেকে তার মধ্যে থেকে কিছু টাকা দিয়ে প্রতিদিন আমি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াই। মাসের ৩০ দিন আমি এই কাজই করি। আর এটার জন্য আমি কখনো হিসার করি না; যে আমার কাছে কত টাকা আছে। আমি কাউকে কোনো প্রতিশ্রুতি দিলে আল্লাহর রহমতে কেনো জানি হয়ে যায়। এটার জন্য কোনো সেভিং আমার কাছে নাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ড্রিম ফর ডিজঅ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনকে ৫ লাখ টাকা দিচ্ছি। যাদের চিকিৎসার প্রয়োজন, তারা সেখান থেকে খরচ করতে পারবে।’

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ও ইরানের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে ‘দিন-দ্য ডে’। সিনেমাটির বাজেট ১০০ কোটি টাকা। এই সিনেমার বাংলাদেশের অংশের প্রযোজক অনন্ত জলিল। অর্থাৎ বাংলাদেশে শুটিংয়ে যে অর্থ ব্যয় হয়েছে, তিনি সেই অংশটুকুতেই লগ্নি করেছেন। অন্যান্য দেশের শুটিংয়ে ব্যয় বহন করেছে ইরানি প্রযোজক। বাজেটের কারণে বেশ আগে থেকেই আলোচনায় রয়েছে ‘দিন-দ্য ডে’। মুক্তির পরেও কম আলোচনা-সমালোচনা হয়নি।