চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগ: কাজে গতি আনতে লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড চালু

33

স্থানীয় সরকার বিভাগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে জনপ্রতিনিধিদের কাজের মানের গতি, স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে স্মার্ট বাংলাদেশ, স্মার্ট জনপ্রতিনিধি ও স্মার্ট জনবল তৈরি করতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন। এজন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ‘লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
আর এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ জনপ্রতিনিধিদের কাজের গতি, আন্তরিকতা,স্বচ্ছতা, জবাবদিরিতা যেমন নিশ্চিত করছে, তেমনি এলাকার জনসাধারণ ও ভোটারদের কাছে তার জনপ্রিয়তা বাড়ছে। সেই সঙ্গে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করে নাগরিকের সেবার মান সুনিশ্চিত করতে এই পদক অগ্রণী ভূমিকা রাখছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২০২২ সাল থেকে প্রায় ১৩টি ক্যাটাগরিতে ১৭টি ফরমের মাধ্যমে লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড প্রদান চালু করা হয়। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, কাউন্সিলর, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, সদস্য, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ইউনিয়ন পরিষদ সচিব, হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, গ্রামপুলিশ, চৌকিদার, দফাদার ও মহল্লাদার এবং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তারা কাজগুলো বাস্তবায়ন করলে কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এ অ্যাওয়ার্ড পাবেন।
উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা নিজ নিজ ওয়ার্ড বা এলাকায় তাদের ভালো কাজ বিশেষ করে কর আদায়, পরিষদ ব্যবস্থাপনা, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন, বাল্যবিবাহ রোধ, হাটবাজার উন্নয়ন, জলাবদ্ধতা নিরসন, ই-সেবা প্রদান, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, দৃশ্যমান ও বৃহৎ পরিকল্পনা গ্রহণ, বেকারদের কর্মসংস্থান, ভিক্ষুক পুনর্বাসন, ক্রীড়া ও শিক্ষা ক্ষেত্রে উন্নয়ন, দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা, কমিউিনিটি মডেল প্রকল্প, স্থায়ী কমিটি গঠন, পরিবেশ সংরক্ষণ, নারীর কর্মসংস্থান, পাখির অভয়ারণ্য স্থাপন, পর্যটন বিকাশ এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, উঠান বৈঠক, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে মতবিনিময় সভা করে পারফরমেন্সগুলো গুগুল শিটের মাধ্যমে জেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইটে প্রমাণক হিসেবে সংযুক্ত করে যারা আপলোড করছেন অটোমেটিক তাদের প্রাপ্ত কাজের মার্ক জমা হয়ে যাচ্ছে।
লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড বিষয়ে জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁন বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে¡ ধাপে ধাপে দৃপ্ত পায়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্র¿ীর অন্যতম অভীষ্ট হচ্ছে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণ। ভিশন-২০৪১ অর্জনের পথে বাংলাদেশ সরকার ইতোমধ্যে জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতি ও উদ্ভাবনমূলক জাতি গঠনে স্মার্ট বাংলাদেশ-২০৪১ রূপরেখা হাতে নিয়েছে। এছাড়া স্থিতিশীল আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কার্যকর গাইডলাইন হচ্ছে ডেল্টা প্ল্যান-২১০০। এ সকল ভিশন ও প্ল্যান অর্জনে স্থানীয় সরকারের ভূমিকা অপরিসীম। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহে স্মার্ট জনপ্রতিনিধি ও স্মার্ট জনবল তৈরী করতে হবে। এছাড়া সাংবিধানিকভাবে স্থানীয় সরকার জনশৃঙ্খলা রক্ষা, জনসাধারণের কার্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্পর্কিত পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করবেন, এটিই সরকারের প্রত্যাশা। লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড-২০২২ নাগরিক সেবাদানে ভালো কাজে পুরস্কার এবং মন্দ কাজে তিরস্কার নীতির প্রতিফলন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করে নাগরিক সেবার মান সুনিশ্চিত করতে এই পদক প্রদান অগ্রণী ভূমিকা রাখবে বলে জেলা প্রশাসন বিশ্বাস করে।
জেলা প্রশাসক আরো বলেন, লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড-২০২২ প্রদানের লক্ষে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে মূল্যায়ন কমিটি গঠন করা হয়। সকল অংশীজনের নিকট নির্ধারিত ফরম প্রেরণ করা হয়। এই অ্যাওয়ার্ডের ধারণাটি সকল অংশীজনের নিকট পৌঁছে দেওয়া এবং প্রণীত সূচক অনুযায়ী কার্যক্রম গ্রহণের জন্য একাধিকবার স্বশরীরে ও ভার্চুয়ালি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে সকল অংশীজনের জন্য নির্ধারিত সূচকসমূহ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়। সকল কার্যক্রম তদারকি করার লক্ষে জেলা প্রশাসন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের সকল কর্মকর্তাকে তদারকি কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়, সার্বক্ষণিক সুপারভিশন করার লক্ষে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ খোলা হয় এবং গুগল শিটের মাধ্যমে নিয়মিত অগ্রগতি প্রতিবেদন সংগ্রহ করা হয়। উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের কার্যক্রম তদারকি করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়।