গোমস্তাপুরে পুলিশ পরিচয়ে গরু খামারে ডাকাতি, ৯টি গরু নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা

19

গোমস্তাপুরের পার্বতীপুর ইউনিয়নের জিনারপুর এলাকার গড়বাড়ি গরু খামারে পুলিশ পরিচয়ে ৯টি গরু নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল দিবাগত রাত দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খামারের মালিক আশরাফুল ও তাঁর স্ত্রীকে হাত-পা বেঁধে গরুগুলো নিয়ে যায়। দুর্বৃত্তরা খামারের ১০টি গরু নিয়ে যাওয়ার সময় সকালে ১টি গরু রাস্তায় পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গোমস্তাপুর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে গোমস্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলীপ কুমার দাস জানান। এদিকে, জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান,  গোমস্তাপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামছুল আজম ও গোমস্তাপুর থানার ওসি দিলীপ কুমার দাস ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

খামারের মালিক আশরাফুল ইসলাম জানান, তাঁর খামারে প্রতিদিনের ন্যায় স্বামী ও স্ত্রী ঘুমিয়ে ছিলেন। গতকাল রাত দেড়টার দিকে ৫ জনের একটি ডাকাতদল খামারের বাঁশের বেত কেঁটে ঘরে ডুকে পড়ে। বিষয়টি বুঝতে পেরে তাঁরা জেগে যান। ওই সময় ডাকাতদলের সদস্যরা জানায় তাঁরা পুলিশ। ঘরের ভিতর মাদক আছে বলে অভিযানে এসেছে। কিছুক্ষণ পর স্বামী-স্ত্রীকে রাস্তার পাশের কালভার্টের পাশে ধানের ক্ষেতে মুখ ও হাত-পা বেঁধে রেখে খামারের গরুগুলো নিয়ে যায়। পরে তিনি হাত-পায়ের বাঁধন ঘষাঘষি করে খুলে ফেলে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার শুরু করেন। সাথে সাথে পরিবার ও এলাকার লোকজনকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসতে বলেন। তাঁর চিৎকারে স্থানীয় ও পরিবারের সদস্যরা  ঘটনাস্থল এসে তাঁদের উদ্ধার করে। খামারে এসে দেখে তাঁদের  গরুগুলো নেই। তিনি একেবারেই দিশেহারা হয়ে পড়েন। বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করার জন্য ও ঘটনাস্থলে পুলিশ আসার জন্য তাঁর ছেলে শাহিনকে নির্দেশ দেন। শাহীন রাতেই জরুরি সেবা ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে পুলিশের সহযোগিতা চান। পুলিশের আসতে দেরী হওয়ার পুণরায় তিনি ৯৯৯ এ ফোন দেন। ৩ঘন্টা পর পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে খামার মালিক ও স্থানীয়রা ক্ষোভ জানান।

গোমস্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলীপ কুমার দাস বিকেলে সাড়ে ৪টার দিকে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয়। আশরাফুলের গরু খামারের ১০টি গরু নিয়ে যান দুর্বৃত্তরা। তবে  একটি গরু রাস্তা পাওয়া গেছে। গরুগুলো উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় গোমস্তাপুর থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। গোমস্তাপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামছুল আজম জানান, গরুগুলো উদ্ধারসহ জড়িতের গ্রেফতারে পুলিশ কাজ করছে।