আফগানিস্তানে যৌথ কূটনৈতিক মিশন চালু করছে ইউরোপীয় দেশগুলো

31

আফগানিস্তানে যৌথ কূটনৈতিক মিশন চালু করতে কাজ করছে বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ। এই মিশন চালু হলে সংশ্লিষ্ট দেশের কূটনীতিকরা আফগানিস্তানে ফিরতে পারবেন। শনিবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন এ তথ্য জানিয়েছেন।

গত আগস্টে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে তালেবান। এরপর থেকে কাবুল থেকে কূটনৈতিক মিশন গুটিয়ে নেয় পশ্চিমা দেশগুলো। তালেবান অন্তর্বর্তী সরকার গঠনের পর আফগানিস্তানের নতুন সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে চাচ্ছে এই দেশগুলো।

সৌদি সফরের আগে কাতারের দোহায় সাংবাদিকদের ম্যাক্রন বলেন, ‘আমরা কয়েকটি ইউরোপীয় দেশের মধ্যে একটি সংস্থার কথা চিন্তা করছি…কয়েকটি ইউরোপীয়দের জন্য এটি সাধারণ গন্তব্য হবে, যেখানে আমাদের রাষ্ট্রদূতরা হাজিরের সুযোগ পাবেন।’

কূটনৈতিক মিশন চালু মানে তালেবানকে স্বীকৃতি নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা রাজনৈতিক স্বীকৃতি বা তালেবানের সাথে রাজনৈতিক সংলাপের চেয়ে ভিন্ন রাজনৈতিক বিচার… যত তাড়াতাড়ি আমরা খুলতে পারব, তত তাড়াতাড়ি আমরা একটি প্রতিনিধিত্ব করতে পারব।’

এর আগে গত সপ্তাহে তালেবানের সঙ্গে বৈঠকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) জানিয়েছিল, আফগানিস্তানে কূটনৈতিক মিশন চালুর ব্যাপারে তারা চিন্তাভাবনা করছেন। সংস্থাটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইইউ প্রতিনিধি দলটি জানিয়েছে কাবুলের মাটিতে একটি ন্যূনতম উপস্থিতি প্রতিষ্ঠার সম্ভাবনা রয়েছে, যা তালেবানকে স্বীকৃতি দেবে না। বিষয়টি সরাসরি নিরাপত্তা পরিস্থিতির উপর নির্ভর করবে।