কাশ্মীরে ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরলেও চালু হচ্ছে না ফেসবুক-টুইটার

11

আংশিকভাবে কাশ্মীরে ফের ব্রডব্যান্ড পরিষেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নিল ভারত প্রশাসন। পোস্টপেইড নম্বরগুলোতে ফের চালু হচ্ছে টুজি ইন্টারনেট পরিষেবাও। তবে ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরে পেলেও এখনই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে পারবেন না কাশ্মীরিরা। আপাতত শুধুমাত্র সরকারি এবং ই-ব্যাঙ্কিংয়ের মতো জরুরি পরিবেষা প্রদানকারী ওয়েবসাইটগুলো খোলা যাবে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিন পাতার বিবৃতি প্রকাশ করে পুনরায় ইন্টারনেট পরিষেবা চালুর কথা জানায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। সেই সঙ্গে কাশ্মীরে অতিরিক্ত ৪০০ ইন্টারনেট কিয়স্কও খোলা হবে বলে জানানো হয়েছে।

তবে বুধবার শুধুমাত্র শ্রীনগরসহ মধ্য কাশ্মীরেই ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরবে। কুপওয়ারা, বন্দিপোরা, বারামুল্লাসহ উত্তর কাশ্মীরে ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরবে দু’দিন পর। তারও দু’দিন পর ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরবে পুলওয়ামা, কুলগাম, শোপিয়ান, অনন্তনাগসহ দক্ষিণ কাশ্মীরে। এক সপ্তাহ পর পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা ফেরানো নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন রাজ্যপাল।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ব্রডব্যান্ড ও টুজি পরিষেবা চালু হলেও, এখনই ফেসবুক, টুইটার এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া সাইট ব্যবহার করা যাবে না। শুধুমাত্র সরকারি ওয়েবসাইট এবং জরুরি পরিষেবার জন্য ব্যবহৃত ওয়েবসাইটগুলো খুলতে পারবেন তারা। খোলা যাবে বিভিন্ন ব্যাংক এবং হাসপাতালের ওয়েবসাইটও। বাকি সাইটগুলোরআইপি অ্যাড্রেসব্লক করে রাখা হবে।

গত ৫ অগস্ট বিশেষ মর্যাদা বিলোপের পর থেকেই গোটা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন কাশ্মীর উপত্যকা। যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ইন্টারনেট পরিষেবার উপরও নিষেধাজ্ঞা বসানো হয়। তা নিয়ে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন উপত্যকার সংবাদপত্র ‘কাশ্মীর টাইমস’-এর নির্বাহী সম্পাদক অনুরাধা ভাসিন এবং কংগ্রেস সাংসদ গুলাম নবি আজাদ।

১০ জানুয়ারি বিষয়টি নিয়ে শুনানি চলাকালীন কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করে শীর্ষ আদালত জানায়, এভাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য ইন্টারনেট বন্ধ রাখা যায় না।