মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবীর ঘুম হারাম করে দিব বলেছেন নবাগত পুলিশ সুপার

34

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নবাগত পুলিশ সুপার এ এইচ এম আবদুর রকিব, জেলার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা করেছেন। আজ বেলা সাড়ে ১১টায় পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময় সভায় জেলার বিভিন্ন সাংবাদিকসহ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মাহবুব আলম খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল), জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ বাবুল উদ্দীন সরদার, সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জিয়াউর রহমান ও জেলা পুলিশের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভায় পুলিশ সুপার বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বিভিন্ন সমস্যা দূর করে এ জেলাকে বাসযোগ্য করে তুলতে চাই। মাদকের ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। এমনকি পুলিশের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী যদি এসব কাজে কাউকে সহযোগিতা করে থাকে তাহলে তাকেও ছাড় দেয়া হবে না।
থানায় এসে জনগণের হয়রানি হবার বিষয়ে তিনি বলেন, অনেকেই জিডি করতে এসে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হন। কেউ হয়তো বাধ্য হয়ে কিংবা খুশি টাকাও দিয়ে থাকেন পুলিশকে। কিন্তু এটা আর হবে না। পুলিশের কোনো কর্মকর্তা যদি এ ব্যাপারে কোনো টাকা নেয় তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। অনেকেই আবার দালাল, প্রতারক বা মধ্যস্বত্বভোগীদের মাধ্যমে থানায় আসেন। সরাসরি ওসির সাথে কথা বলতে পান না। আমি আশা করছি জনগণ আর পুলিশের মধ্যে এই দূরত্বটা নিরসন করব। জনগণ যেন আইনীসেবা সঠিকভাবে পান সেই দিকে লক্ষ্য রাখব। এসময় তিনি আরো বলেন, জমি দখল সংক্রান্ত কোনো জটিলতায় পুলিশ সরাসরি হস্তক্ষেপ করবে না। তবে যদি সরকারি বা কোর্টের আদেশ থাকে তাহলে পুলিশ সহায়তা করবে। তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা সকলেই যেকোন নিউজ করার আগে তা বুঝে-শুনে করবেন। প্রয়োজনে পুলিশের সাথে যোগাযোগ করবেন কিংবা সহায়তা নিবেন। আমরা আপনাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করব। তিনি এ প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের নিয়ে বলেন, বর্তমানে আমাদের মধ্যে অনেকের সন্তানদের নিকট মোবাইল ফোন আছে। মোবাইল ফোনের যেমন উপকারিতা আছে তেমনি ক্ষতিকারক দিকও আছে। ফেসবুক, ইউটিউবের মাধ্যমে আমাদের ছেলেমেয়েরা অনেকেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সেদিকে আমাদের বিশেষ লক্ষ্য রাখা উচিত। বাসায় কোনো ছেলে বা মেয়ে যেন ঘরের দরজা বন্ধ করে মোবাইল বা কম্পিউটার না চালায়।
গুজবের ব্যাপারে পুলিশ সুপার বলেন, ইতোমধ্যে কুচক্রী মহল বিভিন্ন গুজবের মাধ্যমে সারা দেশে জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে। দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করছে। এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের ভূমিকা অনেক। আপনারা যদি সঠিক তথ্যটা জনগণের নিকট পৌঁছিয়ে দেন তাহলে জনগণ দূর্ভোগের মধ্যে পড়বে না। তাই এ বিষয়ে আপনারা লক্ষ্য রাখবেন।