বাংলা ছবিতে বিদ্যা বালান

12

জন্ম সূত্রে তিনি দক্ষিণী। বলিউড চলচ্চিত্রে কর্মজীবনের পাশাপাশি বাংলা, তামিল, মালয়ালম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। যখন প্রথম বলিউডের ছবি করেন সেটা ছিল একজন বাঙালি পরিচালকের। পরিচালক প্রদীপ সরকারের ছবি পরিণীতা বিদ্যা বালানকে বলিউডে এনে দেয় নতুন পরিচিতি। তার পরে আর তাকে অবশ্য পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। আবারো সরাসরি কলকাতা বাংলা ছবিতেই দেখা যাবে বিদ্যা বালানকে।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, এবারেও শৈবাল বান্ধোপাধ্যায় এবং লীনা গঙ্গোপাধ্যায় বেছে নিয়েছেন একেবারে প্রাসঙ্গিক একটি বিষয়। বহু মহিলারা বা মেয়েরা বিয়ে করে থাকেন বিদেশে কর্মরত পাত্রকে। পেয়ে যান ‘নন রেসিডেন্টশিয়াল ইন্ডিয়ান’ স্টেটাস। কারুর আগে থেকে পরিচয় থাকে। আবার অনেকে আছেন যারা বাবা মায়ের পছন্দ করা পাত্রকেই জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নেন। বিয়ে করে বিদেশে তারা পারি তো দেন কিন্তু তার পর অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় লাঞ্ছিত নিপীড়িত ও অত্যাচারিত হতে হচ্ছে সেই পাত্রীদের। অনেক আশা নিয়ে নতুন সংসারের স্বপ্ন নিয়ে সাত সমুদ্র তেরো নদী পারি দেন এই সব নববধূরা। কিন্তু কোথাও যেন তাদের হ্যাপি ফ্যামিলি আ্যলবামের পেছনে থেকে যায় না বলা এক অজানা বাস্তব। এবার এই সব মহিলাদের জীবন কাহিনী তুলে ধরবেন সেলুলোয়েডে লীনা ও শৈবাল।

ছবির সাবজেক্ট যা রয়েছে তাতে বিদ্যার থেকে যে বেটার চয়েস নেই ডুয়েট পরিচালকের হাতে তা তো বোঝাই যাচ্ছে। এবং বিদ্যা যে অসামান্য অভিনয়ে এই চরিত্র ফুটিয়ে তুলবেন তাও আর বলার অপেক্ষা রাখে না। সব ঠিক থাকলে এই বছরের মাঝামাঝি বা শেষের দিকেই শুরু হবে এই ছবির শুটিং। কলকাতা ছাড়াও বিদেশে অনেকখানি শুট করা হবে এই ছবি।