এবার মিথ্যা বলে ফেঁসে গেলেন ট্রাম্পের উপদেষ্টা

22

প্রতিনিধি পরিষদের ইন্টেলিজেন্স কমিটির শুনানিতে মিথ্যা বলায় ফেঁসে গেলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দীর্ঘদিনের উপদেষ্টা রজার স্টোন। বহু বছর তাকে কারাগারে থাকতে হবে।

রজার স্টোনের বিরুদ্ধে আনা সাতটি অভিযোগের সবক’টিতে শুক্রবার ফেডারেল কোর্টের জুরি তাকে দোষী সাব্যস্ত করে। খবর  বিবিসি ও রয়টার্সের।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি সাজা ঘোষণার দিন ধার্য করেছে আদালত। এ সময়ের মধ্যে রজারকে কারাগারে পাঠাতে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করলেও বিচারক তাতে সায় দেননি।

স্বঘোষিত ‘নোংরা চালবাজ’ এই প্রবীণ রিপাবলিকানের বিরুদ্ধে মার্কিন কংগ্রেসের শুনানিতে মিথ্যা বলা, বাধা সৃষ্টি এবং সাক্ষী প্রভাবিত করার সাতটি অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে রয়েছে উইকিলিকসের সঙ্গে তার যোগসাজশের বিষয়টি, যেটি ডেমোক্র্যাটদের ইমেইল ফাঁস করে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে বেকায়দায় ফেলেছিল।

এই সাতটি অভিযোগে ছয়টিতে পাঁচ বছর করে আর সপ্তমটিতে ২০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে রজার স্টোনের।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ তদন্তে স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুয়েলারের প্রতিবেদনের সূত্র ধরে রজার স্টোন ফেঁসে যান। এটি কেবল তার প্রতিই বড় ধরনের ধাক্কা নয়, বরং একজন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্পের কার্যক্রম নতুন করে খতিয়ে দেখার পথ খুলল। অভিশংসনের মুখে এমনিতেই প্রেসিডেন্ট পদ হুমকিতে পড়েছে তার।