সৃজনশীল মানবিক বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রত্যয়ে জেলায় চার দিনের আয়োজন

6

শিল্প সংস্কৃতির আলো ছড়িয়ে দেবার লক্ষে ও সৃজনশীল মানবিক বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে জেলা শিল্পকলা একাডেমি। আয়োজনের মধ্যে রয়েছে উঠান সাংস্কৃতিক, নদীকেন্দ্রিক সাংস্কৃতিক, মানবিক মূল্যবোধের সাংস্কৃতিক এবং বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন শিশুদের নিয়ে অনুষ্ঠান। চার দিনব্যাপী এ আয়োজনের শুরু হবে আগামী ১৩ নভেম্বর বুধবার। সদর উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির বাস্তবায়নে এসব আয়োজনে সহযোগিতায় থাকছে জেলা প্রশাসন।
সদর উপজেলার বাবুডাইং ফিল্টিপাড়ায় ১৩ নভেম্বর দুপুর ২টায় ‘উঠান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে’র মধ্য দিয়ে শুরু হবে চার দিনব্যাপী আয়োজন। পর দিন ১৪ নভেম্বর বারঘরিয়া দৃষ্টিনন্দন পার্ক চত্বরে অনুষ্ঠিত হবে ‘নদীকেন্দ্রিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান’। ওই একই স্থানে ১৫ নভেম্বর ‘বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন শিশুদের নিয়ে অনুষ্ঠান’ এবং ১৬ নভেম্বর ‘মানবিক মূল্যবোধের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান’ অনুষ্ঠিত হবে।
প্রত্যেকটি আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন অতিরিক্ত ডিআইজি পদে সদ্য পদোন্নতি পাওয়া পুলিশ সুপার টিএম মোজাহিদুল ইসলাম ও নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কুণ্ডু।
জেলা কালচারাল অফিসার মো. ফারুকুর রহমান ফয়সল জানান, উঠান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকবে পালা গান, পুথি পাঠ, ফোক গান ও কোল সম্প্রদায়ের সংস্কৃতি। নদীকেন্দ্রিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকবে বিভিন্ন সময়ের নদীকেন্দ্রিক গান, মনসার পালা ও জাওনি গান। আর অটিস্টিক শিশুদের নিয়ে থাকছে বিভিন্ন আয়োজন। তারা যে যে বিষয়ে দক্ষ তা পরিবেশন করবে। মানবিক মূল্যবোধের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মাদক, বাল্যবিয়ে, যৌতুক, জঙ্গি বিষয়ের কুফল এবং সামাজিক যে অস্থিরতা সে সম্পর্কে গান, কবিতা, গম্ভীরা গানসহ বিভিন্ন মাধ্যমে তা তুলে ধরা হবে। এছাড়া এসব বিষয়ে ওই দিনই একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।
জেলা কালচারাল অফিসার জানান, সর্বত্রই শিল্প সংস্কৃতির আলো ছড়িয়ে দিতেই এ আয়োজন। একাডেমির লক্ষ্যই হচ্ছে এসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে সৃজনশীল মানবিক বাংলাদেশ গড়ে তোলা। আর মানবিক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হলে প্রথমে নিজেদেরই আগে মানবিক হিসেবে গড়ে উঠতে হবে। শিল্প-সংস্কৃতির মধ্য দিয়েই মানবিক মানুষ হওয়া সম্ভব।