সায়ন্তিকা ছায়াবাজের শুটিং ছেড়ে চলে যাওয়া প্রসঙ্গে যা বললেন

67

শুটিং না করেই দেশে ফিরে গেছেন এ দাবি উড়িয়ে দিয়ে ভারতীয় বাংলার এক গণমাধ্যমে সায়ন্তিকা বলেন, প্রথমে অন্য এক নৃত্য পরিচালক এসেছিলেন নাচের দৃশ্য শুটিংয়ের জন্য। কিন্তু সেখানে টাকা-পয়সা নিয়ে সমস্যার কারণে তিনি চলে যান। তারপর মাইকেল নামক বাচ্চা ছেলেটি আসে।

সম্প্রতি জায়েদ খানের সঙ্গে জুটি বেঁধে ‘ছায়াবাজ’ সিনেমায় কাজ করতে বাংলাদেশে এসেছিলেন ওপার বাংলার অভিনেত্রী সায়ন্তিকা ব্যানার্জি। ঢাকায় পা রেখেই কক্সবাজারে মনিরুল ইসলামের প্রথম প্রযোজিত এ সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সিনেমার নৃত্য পরিচালকের সঙ্গে দ্বন্দ্বের জেরে শুটিং পুরোপুরি শেষ হওয়ার আগেই হঠাৎ কলকাতায় ফিরে গেছেন নায়িকা।

নায়িকা বলেন, আমি একজন পেশাদার শিল্পী। তাই এ রকম করার কথা ভাবতেই পারি না। মাইকেল আমার থেকে অনুমতি না নিয়েই আমার হাত ধরে আমাকে সরাতে গিয়েছিল। তখন আমি তাকে সবার সামনেই বাধা দেই। এছাড়া মূল সমস্যার নেপথ্যে রয়েছেন সিনেমার প্রযোজক। বার বার আমি প্রযোজক মনিরুলের সঙ্গে কিছু টেকনিক্যাল সমস্যা নিয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু এ ক্ষেত্রে তার পক্ষ থেকে কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি। নায়িকা আরও বলেন, দু’দিন ধরে কক্সবাজারে গিয়ে অপেক্ষা করেছি। শুটিং নিয়ে প্রযোজকের কোনো পরিকল্পনা ছিল না। হঠাৎই বলা হলো, নাচের দৃশ্যের শুটিং করা হবে! তাই তখন বলেছিলাম, আমি এভাবে কাজ করব না মাইকেলের সঙ্গে।

সায়ন্তিকার দাবি, এত কিছুর পরও প্রযোজক জানিয়েছিলেন মাইকেলকে সঙ্গে নিয়েই তার কাজ করতে হবে। অভিনেত্রী বলেন, তারা যদি সঠিক পদ্ধতিতে কাজ করেন, তাহলে আমি নিশ্চয়ই সিনেমার কাজ শেষ করব। কিন্তু তার আগে আমাকে চিত্রনাট্য, শট ডিভিশন পুঙ্খানুপুঙ্খ জানাতে হবে। উল্লেখ্য, ছায়াবাজ সিনেমার শুটিং সেরে কলকাতা ফিরে যাওয়ার আগে জায়েদের সঙ্গে আরও একটি সিনেমার সই করেছেন সায়ন্তিকা।