সরস্বতী পুজোয় হলুদ পোশাকের পরার কারণ

75

প্রাচীনকাল থেকেই হলুদ রঙ বসন্তের প্রতীক। এই বিশেষ দিনে হলুদ রঙের পোশাক পরার রীতি বরাবরই ছিল আমাদের দেশে। সেই রীতি এখনও চলে আসে। বসন্তকালের গুরুত্ব বরাবরই হিন্দু শাস্ত্রে রয়েছে। তাই হলুদ রঙও গুরুত্বপূর্ণ। জেনে নিন সরস্বতী পুজোয় হলুদ পোশাকের পরার কারণ
সরস্বতী পুজোর জন্য সারা বছর অপেক্ষা করে থাকেন ছোট থেকে বড়রা। গোসল করে পবিত্র হয়ে নতুন পোশাক পরে পুজোয় মন্ত্র উচ্চারণের যে নিয়ম অতীত থেকে চলে আসছে। সাধারণত সরস্বতী পুজোয় দেবীকে হলুদ রঙের (গাঁদা ফুল) নিবেদন করা হয়। সাধারণত পুজো শুরুর আগে দেবীর আসনে হলুদ রঙের কাপড় বিছিয়ে দেওয়া হয়। মনে করা হয়, হলুদ বিদ্যাদেবী সরস্বতীর প্রিয় রঙ। হলুদ রঙ নতুন কিছু শুরু করার প্রতীক হিসেবে মনে করেন। সরস্বতী পুজোর সময় শীত শেষে বসন্তের আগমন হয়। আর তাই হলুদ রঙের পোশাকে বসন্তকে স্বাগত জানানো হয়। হলুদ রং মঙ্গলময়। শুভ শক্তিকে স্বাগত জানানোর জন্য এই রঙ। তাই বিয়ের আগে গায়ে হলুদেরও রীতি রয়েছে। সরস্বতী পুজোর দিন হলুদ শাড়ি বা হলুদ পাঞ্জাবি পরেন অনেকেই। এই রঙ শুভ কিছু সূচনা করে বলে মনে করা হয়। হলুদ রঙ আশার রঙ হিসেবেও পরিচিত। একে শুভবুদ্ধির রঙ হিসেবে বলে মনে করে। ধূসর শীতকালের পর বসন্তের শুরুতে এই রং মনে নতুন আশার সঞ্চার ঘটায়। সুস্বাস্থ্যেরও প্রতীক হলুদ রঙ। বাস্তুমতে হলুদ রঙের অর্থ কোনও কিছু নতুন শুরু করা। যেহেতু এই সময় থেকেই শীত শেষ হয়ে বসন্তকাল শুরু হয়, তাই বসন্তপঞ্চমীতে হলুদ রঙের পোশাক পরার রীতি প্রচলিত। হলুদ রং শক্তি ও মঙ্গলদায়ক শক্তির দিকে আমাদের আকর্ষণ করে। নতুন একটি ঋতুর শুরুতে এই রং মানসিক ভাবে আমাদের শক্তি জোগায়।