শিবগঞ্জে আগুন পুড়ল ৮ দোকান ও ৩ ঘর, দেড় কোটি টাকার ক্ষতি

128

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে পৃথক আগুনে পুড়ে আটটি দোকান ও তিনটি ঘর ভষ্মিভূত হয়েছে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় দেড় কোটি টাকা। দোকানগুলোর মধ্যে পাঁচটি মুদিখানা, দুটি মসলা ও একটি কসমেটিকস। সোমবার রাত পৌণে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। যদিও ফায়ার সার্ভিস বলছে, ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১৮ লাখ টাকা ও উদ্ধার করা হয়েছে প্রায় ৩০ লাখ টাকার মামামাল। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত পৌণে ১২টার দিকে শিবগঞ্জ সাংস্কৃতিক পরিষদের সামনে প্রথমে মোহাম্মদ আলীর মুদির দোকানে আগুনের সূত্রপাত হয়ে মুহুর্তের মধ্যে আশপাশের দোকানে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে পাঁচটি মুদি, দুটি মসলা ও একটি কসমেটিক দোকান আগুনে পুড়ে ভষ্মিভূত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দমকল বাহিনী ঘটনাস্থলে এসে এক ঘণ্টা চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে প্রায় কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ দোকানীরা। ক্ষতিগ্রস্থ মুদি দোকানী নওশাদ আলির দাবি- তারা তিন ভাইয়ের শুধু তিনটি মুদিখানার দোকানেই এক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। কসমেটিক দোকানী সুমন আলী বলেন, আগুনে পড়ে তিন লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে। প্রাথমিক ধারণা- বৈদ্যুতিক শর্ট সাকিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। এদিকে খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উজ্জল হোসেন, সহকারী কমিশার (ভূমি) জুবায়ের হোসেন, শিবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সৈয়দ মনিরুল ইসলাম ও শিবগঞ্জ থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এর আগে বুধবার দুপুরে উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নে সাহাপাড়া বৈরাগীপাড়ায় রান্নাঘরের চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়ে ওয়াজেদ আলির ছেলে আবদুর রশিদের বাড়ির তিনটি ঘর, দুটি ছাগল, একটি গরু ও আসবাবপত্র ভষ্মিভূত হয়েছে। তার প্রায় পাঁচ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। শিবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ম্যানেজার কাদেরী কিবরিয়া জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। এ সময় প্রায় ১৮ লাখ টাকা মূল্যের মালামাল পুড়ে ভষ্মিভূত হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে ৩০ লাখ টাকার মালামাল। বৈদ্যুতিক শর্ট সাকিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। অন্যদিকে সাহাপাড়া পৌঁছার আগে জনগণ আগুন নিয়ন্ত্রণের আনায় ফিরে এসেছি। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, শিবগঞ্জ বাজারের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। ক্ষতির পরিমাণ প্রায় দেড় কোটি টাকা। এ ঘটনায় প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদিত হয়ে আসলে ক্ষতিগ্রস্থদের সহযোগিতা করা হবে।