মারা গেছেন পরীমনির নানা

90

ছোটবেলায় মারা গেছেন মা-বাবা। আপন বলতে ছিলেন এক নানা। অবশেষে তিনিও অভিনেত্রী পরীমনিকে ছেড়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে। এদিকে নানা শামসুল হক গাজী যে অভিনেত্রীর কতটা জুড়ে ছিলেন—পরীমনির বক্তব্যেই তা স্পষ্ট। বেশকিছু দিন ধরে অসুস্থ ছিলেন পরীমনির নানা। বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

কয়েকদিন আগে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন পরীমনির নানা। সেসময় অভিনেত্রী সংবাদমাধ্যমকে বলেছিলেন, নানার এখন যে অবস্থা, কখন যে কী ঘটে যায়, বলা যায় না। আমি আসলে ভাবতেই পারছি না। নানা না থাকলে আমার যে কী হবে। কীভাবে থাকব আমি! সামাজিকমাধ্যমে পরীমনির নানার মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী। নিজের ফেসবুকে মৃত্যুসংবাদ দিয়ে তিনি লিখেছিলেন, আমাদের শ্রদ্ধেয় নানুভাই পরীমনির প্রিয় নানুভাই রাত ২টা ১১ মিনিটে এভারকেয়ার হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসারত অবস্থায় সবাইকে কাঁদিয়ে আমাদের ছেড়ে পরপারে চলে গেছেন। সবাই পরীর জন্যে, পরীর নানুভাইয়ের জন্যে দোয়া ও প্রার্থনা করবেন, যেন পরপারে তিনি শান্তিতে থাকেন। পরী যেন সহ্য শক্তি পায়। আহা! নানুভাই আপনাকে কোনো দিন ভুলব না। আমার দেখা আপনি অসাধারণ সুশিক্ষিত একজন মানবিক মানুষ। আপনার ভালোবাসা অমলিন। শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা।