ব্রাজিলের আরও তিন তারকা অসুস্থ, খেলবেন তো সুইদের বিপক্ষে?

48

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামার আগে আরও বড় দুশ্চিন্তায় ব্রাজিল। ফ্লু-এর মতো ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন দলটির তিন তারকা অ্যান্টোনি, লুকাস পাকুয়েতা এবং গোলরক্ষক অ্যালিসন। অসুস্থতার কারণে অনুশীলনেও যোগ দিতে পারেননি এই তারকারা।

এমনিতেই ইনজুরির কারণে দলে নেই নেইমার এবং দানিলোর মতো তারকা। সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে সোমবার রাত ১০টায় মাঠে নামার এই তিন তারকার অসুস্থ বড় ধাক্কা ব্রাজিলের জন্য। কারণ, এই তিন তারকাকে মাঠে নামাতে পারবেন কি না ব্রাজিল কোচ তিতে, সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না।

যদিও ব্রাজিল শিবির থেকে এ তিন তারকার ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করা হয়নি। কোচ তিতে জানিয়েছেন, তিনি প্রথম দলের ব্যাপারে এখন কোনো কথাই বলবেন না।

শনিবার আল আরবি স্টেডিয়ামে রুদ্ধদ্বার অনুশীলন করে ব্রাজিল। রোববার সংবাদ সম্মেলনে তার কাছে লুকাস পাকুয়েতাকে নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হয়। কিন্তু এ ব্যাপারে কিছুই বলেননি তিনি। তখনও পাকুয়েতার খবর জানা গিয়েছিল। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের খবর, শনিবার পাকুয়েতা ভালো করে অনুশীলনও করতে পারেননি। সামান্য অস্বস্তি রয়েছে।

তবে, ডেইলিমেইলসহ আরও বেশ কিছু সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, পাকুয়েতা, অ্যান্টোনি এবং অ্যালিসন এই তিনজনই অনুশীলন করতে পারেননি। তারা ফ্ল টাইপের কোনো ভাইরাসজনিত কারণে অসুস্থ।

সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের একেবারে শেষ দিকে এসে ডান পায়ের গোড়ালি মচকে যায় নেইমারের। এরই মধ্যে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে পারবেন না তিনি। ক্যামেরুনের বিপক্ষেও খেলতে পারবেন কি না তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। একই ধরনের ইনজুরিতে পড়েন দানিলোও। ফলে তিনিও খেলতে পারবেন না সুইসদের বিপক্ষে।

ম্যানইউতে খেলা অ্যান্টোনি এরই মধ্যে দু’বার ট্রেনিং সেশন মিস করেছেন। তবে, রোববার কিছুক্ষণ অনুশীলন করেন। যদিও পরে পাকুয়েতা এবং অ্যালিসনের সঙ্গে পুরোপুরি অনুশীলন না করেই ফিরে যান।

নেইমার না থাকায় তার জায়গায় অ্যান্টোনিকেই চিন্তা করে রেখেছিলেন কোচ তিতে। এখন কোচকে ভিন্ন পথে হাঁটতে হবে। রিয়াল তারকা রদ্রিগো হতে পারেন সেরা বিকল্প। না হয় আর্সেনালের দুই তারকা গ্যাব্রিয়েল হেসুস কিংবা গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেল্লিকে মাঠে নামাতে পারেন তিনি। সঙ্গে রিচার্লিসন এবং রাফিনহা তো রয়েছেনই।

তবে তিতে তার সেরা বিকল্প হলো ক্যাসেমিরোর পাশে ফ্রেডকে খেলিয়ে মিডফিল্ড শক্তিশালী করতে পারেন। পাকুয়েতা যদি খেলেন, তাহলে তাকে একটু সামনের দিকে রেখে খেলাতে পারেন তিতে।

দানিলোর জায়গায় সেন্টার ব্যাক এডার মিলিতাওকে মাঠে নামানোর সম্ভাবনা বেশি। ঘানার বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে তিনি সে জায়গাতেই খেলেছিলেন। এছাড়া তিতের হাতে রয়েছে দানি আলভেসের মতো অভিজ্ঞ ডিফেন্ডারও। যদিও তিতে বলেন, ‘আমি এরমধ্যেই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি কাকে খেলাব। কিন্তু ম্যাচের আগে কোনও ভাবেই সেটা জানাব না।’

তিতের সংযোজন, ‘কৌশলগতভাবে যে ফুটবলার শারীরিকভাবে যত বেশি সুস্থ, সেই অনুযায়ী তাদের খেলানোর পরিকল্পনা করেছি। মিলিতাও আগে রাইট ব্যাক হিসাবে খেলেছে। দানি আবার খেলা তৈরি করতে ভালবাসে। দলকে নেতৃত্বও দিতে পারে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী হয়।’

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে সংবাদ সম্মেলনে তিতে জানিয়েছেন, নেইমার এবং দানিলোকে আবার বিশ্বকাপে দেখতে পাওয়ার ব্যাপারে তিনি আশাবাদী। ব্রাজিল কোচ বলেন, ‘আশা করি ওদের আবার এই বিশ্বকাপে দেখা যাবে। চিকিৎসকদের কথা মাথায় রেখেই বলছি। যারা চোট পেয়েছে তাদের সঙ্গেও কথা হয়েছে। মাঠে ফেরার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করছে ওরা। আশাকরি পরের দিকে ওদের রেখেই দল সাজাতে পারব।’