বাজারে রিভ অ্যান্টিভাইরাস মোবাইল সিকিউরিটি

353

অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশি বহুজাতিক সাইবার সিকিউরিটি পণ্য রিভ অ্যান্টিভাইরাস সম্প্রতি বাজারে এনেছে ‘রিভ অ্যান্টিভাইরাস মোবাইল সিকিউরিটি’। রিভ-এর পক্ষ থেকে বলা হয়, অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমচালিত যেকোনো মোবাইল ফোন বা ট্যাবে রিভ মোবাইল সিকিউরিটি ইনস্টল করা থাকলে যে কোনো ধরনের ভাইরাস, ম্যালওয়্যার থেকে ‘সম্পূর্ণ সুরক্ষা’র পাশাপাশি ঘরে বসেই ফোন ট্র্যাক করা যাবে। এজন্য মোবাইল কোম্পানি বা অন্য কোথাও যেতে হবে না। ঘরে বসে যে কোনো সাধারণ ফোন থেকে এসএমএস পাঠিয়ে বা ইন্টারনেটে সংযুক্ত হয়ে হারিয়ে যাওয়া ফোনের নিখুঁত অবস্থানসহ সাইলেন্ট বা ভাইব্রেশন মুডেও অ্যালার্ম বাজানো যাবে, সেই সঙ্গে ফোন লক করে দেওয়া বা ডাটা মুছে ফেলাও যাবে। প্রতিষ্ঠানটির পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়, সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে আগের বছরের তুলনায় এই বছর মোবাইল র‌্যানসমওয়্যার হামলা তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ প্রান্তিকে মোট ২ লাখ ১৮ হাজার ৬২৫টি মোবাইল র‌্যানসমওয়্যার ফাইল শনাক্ত করা হয়েছে, যা এর আগের প্রান্তিকে শনাক্ত হওয়া ৬১ হাজার ৮৩২টির চেয়ে তিন গুণ বেশি। দেশিয় অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের অনেকেই ‘এমবি’ তথা ডেটা বাঁচাতে অ্যাপ ডাউনলোড না করে শেয়ারইট অন্যান্য মাধ্যমে এক মোবাইল ফোন থেকে অন্য মোবাইল ফোনে শেয়ার করে। এতে একদিকে যেমন ভাইরাস এক মোবাইল ফোন থেকে অন্যান্য মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে পড়ে, ঠিক তেমনি নিয়মিত হালনাগাদ না হওয়ায় একে একে অ্যাপগুলোও হয়ে উঠে ভাইরাস ও ম্যালওয়্যারের সহজ লক্ষ্য। এসব ভাইরাস ও ম্যালওয়্যারের কিছুকিছু এতটাই ভয়ংকর যে কোনোভাবে একবার ফোনে স্থান করে নেওয়ামাত্র তা রিমোট অ্যাকসেস টুল হিসাবে ফোনের নিয়ন্ত্রণ সরাসরি হ্যাকারের হাতে তুলে দিতে পারে। ফলে, ওই ফোন থেকে কাকে কল করা হচ্ছে বা কী কী এসএমএস পাঠানো হচ্ছে সহ সংরক্ষিত যাবতীয় তথ্য, ছবি চলে যায় হ্যাকারের কাছে। ফলে, শুধু ভাইরাস থেকে সুরক্ষাই নয় পাশাপাশি ফোনে থাকা অ্যাপসমূহের মাঝে কোনটি নিরাপদ ও কোনটি নয় তা জানার জন্যও অ্যান্ড্রয়েড ফোনের নিরাপত্তা আবশ্যক, মন্তব্য রিভ-এর। গুগল প্লে স্টোর থেকে রিভ অ্যান্টিভাইরাস মোবাইল সিকিউরিটি ইনস্টল করে ৩০ দিনের ট্রায়াল ব্যবহার করা যাবে। এরপর চাইলে অ্যাপ থেকেই এক বছরের লাইসেন্স কিনে নেয়া যাবে।