টাকা ও রুপিতে ভারত-বাংলাদেশে আমদানি-রপ্তানি বিষয়ে মতবিনিময়

142

বাংলাদেশী টাকা ও ভারতীয় রুপি লেনদেনের মাধ্যমে উভয় দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বিষয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এই সভার আয়োজন করে।
জেলা শহরের পুরাতন বাজারে চেম্বার ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেনÑ রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার শ্রী মনোজ কুমার।
মনোজ কুমার বলেন, দুই দেশের মধ্যকার সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। চেম্বারের সভাপতিও উল্লেখ করেছেন যে, ১৯৪৭ সাল থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সঙ্গে কী ধরনের সম্পর্ক রয়েছে। তিনি বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের মানুষ সৌহার্দ্য ও সামাজিকতা পছন্দ করেন এবং সাংস্কৃতিকভাবে অনেক উন্নত।
মনোজ কুমার বলেন, ভারতের সঙ্গে চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুই ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। একটি মাহাদীপুর স্থলবন্দর ও আরেকটি রহনপুর রেলবন্দর। সম্প্রতি তৃতীয় রুট হিসেবে নৌরুট চালু হয়েছে ধুলিয়ান ময়া থেকে সুলতানগঞ্জ। সুতরাং আমরা নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছি। আমরা অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ককে আরো জোরদার ও সহজতর এবং বাণিজ্য সম্পর্ক খুঁজে বের করার জন্য ক্রমাগত কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশের রপ্তানির বিকাশে অত্যন্ত আন্তরিক।
ডলার সংকটের কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের রপ্তানিও একসময় উন্নত হবে। স্টেট ব্যাংকের সিইও এ বিষয়ে উল্লেখ করেছেন।
তিনি বলেন, কিভাবে দুই দেশ একে অপরের সঙ্গে কাজ করবে এই সভায় সে বিষয়টিও উঠে এসেছে। এটা ঠিক যে, ডলারের সংকট এবং প্রতিটি দেশেরই বৈদেশিক মুদ্রার কিছু জটিলতা আছে। তাই সেই জটিলতা কমিয়ে প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য উভয় (ভারত-বাংলাদেশ) দেশের সরকারই সর্বোচ্চ উদ্যোগ নিয়েছে। এজন্যই ডলারের পরিবর্তে টাকা ও রুপিতে আমদানি-রপ্তানির কথা বলা হয়েছে। তিনি বলেন, এটি একটি ধাপ। আমি নিশ্চিত যে উভয় সরকারই এ বিষয়কে সহজীকরণ করতে আরো পদক্ষেপ নেবে।
মনোজ কুমার বলেন, এখানে অনেকেই অনেক পরামর্শ দিয়েছেন। সবগুলোই ভালো পরামর্শ। তবে যেটি খুবই ভালো পরামর্শ, সেটি হলো, রুপি ও টাকায় সরাসরি আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য করা। আশা করি যে, উভয় সরকারই এই বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেবে। মনোজ কুমার মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান, দুই দেশের মধ্যে ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ক, সাংস্কৃতিক সম্পর্কের কথাও তুলে ধরেন।
জেলা চেম্বারের সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেনÑ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ রুহুল আমিন, ঢাকায় কর্মরত স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন্ত ঘোষ।
ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার ভিসা নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, মানুষ যেন দ্রুত সময়ের মধ্যে ভিসা পান, সে লক্ষে আমরা কাজ করছি।
সভা শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন জেলা চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি মসিউল করিম বাবু। সভা সঞ্চালনা করেন সহসভাপতি আখতারুল ইসলাম রিমন।
সভায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট নেতৃবৃন্দ সরসরি রুপিতে বাণিজ্য ও ভিসা কার্যক্রম সহজীকরণের দাবি জানান।