গোমস্তাপুরে পোকামাকড় চিহ্নিত ও দমনে অতন্দ্র জরিপ কার্যক্রমের প্রশিক্ষণ

11

গোমস্তাপুরে রোপা আমন সুরক্ষার প্রচেষ্টায় নিয়মিত ও নিবিড়ভাবে পরিদর্শন এবং পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে ক্ষতিকর পোকামাকড় চিহ্নিতকরণ, পূর্বাভাস ও দমন ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে কৃষকদের অতন্দ্র জরিপ কার্যক্রমের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। আজ সকালে রহনপুর পৌরসভা ব্লকের খয়রাবাদ মাঠে এই কার্যক্রম চালানো হয়। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত অতন্দ্র জরিপ কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন গোমস্তাপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ সরকার, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ফিরোজ আলী, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক, উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রাকিবউদ্দিন, কৃষক মতিউর রহমানসহ অনেকে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এই পদ্ধতিতে ক্ষেতের ফসলের ২০টি করে গোছা নির্বাচন করা হয়। প্রতি গোছায় ক্ষতিকর ও উপকারী পোকা ও পাতার সংখ্যা গণনা করে তা লিপিবদ্ধ করে রাখা হয়। এক সপ্তাহ পর আবারও সেগুলো পর্যবেক্ষণ করে রোগ ও পোকার আক্রমণ নির্ণয় করা হয়। চাক্ষুষ পদ্ধতি সুইপিং নেট (হাতজাল) ব্যবহার করে পোকা সংগ্রহ, চিহ্নিতকরণ, পূর্বাভাস ও দমন ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে তাঁরা জানান। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ সরকার বলেন, এই অতন্দ্র জরিপ পদ্ধতির মাধ্যেম কৃষক রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার আগেই জেনে যাচ্ছে। এর ফলে পোকার আক্রমণ থেকে কৃষকরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারবেন এবং ফসল রক্ষা করতে পারবেন। এই পদ্ধতি ব্যবহার করলে কৃষকদের কীটনাশক ও রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমে আসবে। ফলে কৃষকরা আর্থিকভাবে লাভবান হবে বলে তিনি জানান। এদিকে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ফসলের মাঠে পর্যায়ক্রমে এ পদ্ধতি কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।