খুসখুসে কাশি দূর করুন ১ টি মাত্র উপাদান দিয়ে

367

শারীরিক ও মানসিক উভয় দিক দিয়েই কাশি একটি হতাশাজনক ও অস্বস্তিকর সমস্যা। কাশি দুই ধরনের হয়ে থাকে – শুকনো কাশি ও ভেজা কাশি। শুকনো কাশি হয়ে থাকে অ্যালার্জি, ধুলাবালি এবং অন্য বিরক্তিকর উপাদানের কারণে। ভেজা কাশি হয় গলায় শ্লেষ্মা জমা হলে। ভাইরাসের সংক্রমণ, ঠান্ডা, ধূমপান, হাঁপানি, ফুসফুসের ক্যান্সার, যক্ষ্মা এবং ধুলা কাশির সমস্যা সৃষ্টির কারণ। কাশির সাধারণ লক্ষণ হচ্ছে কফ জমে থাকা, গলায় চুলকানি হওয়া এবং ব্যথা করা। বেশীরভাগ মানুষই কাশি দূর করার জন্য সিরাপ বা ট্যাবলেট সেবন করে থাকেন। কিন্তু সাধারণ ঘরোয়া একটি উপাদান দিয়েই সিরাপ বা ট্যাবলেটের মতোই উপকারিতা পাওয়া যম্ভব। এই উপাদানটি হচ্ছে আদা। কাশি দূর করতে আদার ব্যবহারের বিষয়টিই জানবো আজকের ফিচারে।
কেন আদা কাশি দূর করতে কার্যকরী?

– আদায় অ্যান্টিইনফ্লামেটরি এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান থাকে যা
ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করতে কাজে লাগে।
– শ্বাসনালীতে জমে থাকা কফকে নরম বা ঢিলা করতে সাহায্য করে।
– আদায় থাকা জিঞ্জেরল এবং জিঞ্জিবেরিন ইমিউনিটিকে উদ্দীপ্ত করে।
– এটি অন্ননালীতে আবরণ তৈরি করে বলে চুলকানি ও যন্ত্রণা প্রতিরোধ হয়।
– কাশির ফলে গলায় যে প্রভাব পরে তা কমাতে এবং গলাকে নমনীয় করতে সাহায্য করে।
– কাশি দূর করার জন্য আদা ব্যবহার করবেন কীভাবে?
১। শুধু আদা
কাশি দূর করার জন্য আদা টুকরো করে কেটে চিবিয়ে খেতে পারেন দিনে ৩ থেকে ৪ বার।
২। আদা চা
১ ইঞ্চি পরিমাণ আদা কুঁচি করে নিন। ১ কাপ পানি ফুটতে দিয়ে এর মাঝে আদা কুচি দিয়ে দিন। অল্প আঁচে ৫ মিনিট রেখে চুলা থেকে নামিয়ে নিন। মিশ্রণটি ঠান্ডা হতে দিন। তবে কুসুম গরম থাকাই ভালো। লেবুর রস মিশিয়ে দিনে ২ বার পান করুন।

৩। আদা তুলসী
১০/১৫ টা তুলসী পাতা পিষে নিন। ১ ইঞ্চি পরিমাণ আদা থেঁতলে নিয়ে রস বের করুন। তুলসী পাতার পেস্টের সাথে আদার রস ও মধু মেশান। ১ চামচ করে দিনে ৩ বার এই মিশ্রণটি সেবন করুন।
৪। গোল মরিচ ও আদা
১ ইঞ্চি আদা কুচি করে ও থেঁতলে রস বের করে নিন। আদার রসের সাথে ১ চিমটি করে গোল মরিচের গুঁড়া, হলুদ ও মধু যোগ করুন। ভালোভাবে মিশিয়ে নিয়ে মিশ্রণটি চেটে খান ১০ মিনিট যাবৎ। দিনে ৩ বার এটি করুন।
৫। আদা ও মধু
শ্বাসনালীকে প্রশমিত করতে এবং কাশি সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সাহায্য করে মধু। ১ ইঞ্চি পরিমাণ আদার রসের সাথে ১ চা চামচ মধু মিশিয়ে নিনে দিনে ৩ বার গ্রহণ করুন। এই মিশ্রণটি খাওয়ার পর আধা ঘন্টা পানি পান করবেন না।
টিপস ও সতর্কতা:

– যদি আদার প্রতি অ্যালাজি থাকে  তাহলে আদা ব্যবহার করবেন না।
– যন্ত্রণা কমাতে ও পরবর্তী সংক্রমণ ঠেকাতে লবণ পানি দিয়ে কুলকুঁচি করুন।
-ঠান্ডা পানি পান করবেন না, উষ্ণ পানি পান করুন।
-স্যুপ খেতে পারেন ভালো অনুভব করার জন্য।
-প্রচুর তরল খাবার পান করুন।
-ইমিউনিটিকে শক্তিশালী করার জন্য প্রতিদিন আদা খান।