উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের দুই দিনের প্রশিক্ষণ শুরু

95

অনাবাদি পতিত জমি ও বসতবাড়ির আঙিনায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান স্থাপন নামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। এই প্রকল্পের আওতায় গ্রামের মানুষ বসতবাড়ির আঙিনা, পুকুর ও খালের পাড়, বাড়ির আশপাশ, স্যাঁতসেঁতে ছায়াযুক্ত প্রতি ইঞ্চি অব্যবহৃত ও অনাবাদি জমিতে শাকসবজি ও ফলমূল উৎপাদন করবেন। এতে মানুষের পুষ্টিহীনতা দূর হওয়ার পাশাপাশি খাদ্য নিরাপত্তাও নিশ্চিত হবে। একজন কৃষক সারা বছরই খামার থেকে কিছু না কিছু পাবেনই। কখনো সবজি থাকবে, আবার কখনো ফল থাকবে। বসতবাড়ির আঙিনা বা নিকটস্থ পতিত জমির ব্যবহার করে শাকসবজি উৎপাদনের মাধ্যমে স্বল্প খরচ ও শ্রমে পরিবারের পুষ্টি চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি অতিরিক্ত অংশ বিক্রি করে বাড়তি আয় সম্ভব হবে।
প্রকল্পটির সঠিকভাবে বাস্তবায়নের লক্ষে কৃষকের পাশাপাশি মাঠপর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তাদেরও দক্ষ করে গড়ে তোলা হচ্ছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ হলরুমে রবিবার সকাল থেকে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের দক্ষতা উন্নয়ন শীর্ষক দুই দিনের প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে।
প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. পলাশ সরকার। এসময় হর্টিকালচার সেন্টারের উপপরিচালক ড. বিমুল কুমার প্রামানিক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক (উদ্যান) মো. মাসুদ আহমেদ, জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম।
প্রশিক্ষণে ৬০ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা অংশ নিচ্ছেন। এইসব উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্রশিক্ষণ নিয়ে সঠিক নিয়মে গ্রামের কৃষকদের অনাবাদি পতিত জমি ও বসতবাড়ির আঙিনায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান স্থাপনে উদ্বুদ্ধ করবেন।