আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

234

শান্তি আমার অধিকার-প্রতিপাদ্যে সদর উপজেলায় আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সকালে নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে পীস কন্সোর্টিয়াম প্রকল্পের সহযোগিতায় এই অনুষ্ঠানটি বাস্তবায়ন করছে সদর উপজেলা প্রশাসন। নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাসিনুর রহমানের সভাপতিত্বে র‌্যালী ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন, ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হলে সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। তিনি আরো বলে শান্তি আমার অধিকার। যদি এটা হয়ে থাকে তাহলে বাস্তবায়ন করাও আমার অধিকার। কারো উপর চাপিয়ে দিলে হবে না। নিজের কাজ নিজেকে করতে হবে। যদি আমি শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চাই, তাহলে সবাইকে আত্মউপলব্ধি করতে হবে, নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। বর্তমানে সরকার যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, ধীরে ধীরে আমরা উন্নয়নের চরম শিখরে উপনীত হয়েছি। এ উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে একটি স্থিতিশীল অবস্থা বজায় রাখতে হবে। একে ধরে রাখতে হলে স্থিতিশীল অবস্থার মূল মাপকাঠি হলো শান্তি বজায় রাখা। সেই শান্তি পরিবারে হতে পারে, সমাজে, রাষ্ট্রে হতে পারে। যদি আমরা সেটি না করতে পারি, তাহলে আজকে যে প্রতিপাদ্য -শান্তি আমার অধিকার- এই কথাটি ভূল প্রমাণিত হবে। আর তা আমরা চাই না। আমরা চাই শিক্ষকম-লী যারা আছেন তারা আমাদের নতুন প্রজন্ম, আমরা এই দেশটাকে যাদের হাতে ছেড়ে দেব, তাদের সামনে যেন সত্য ও সঠিক তথ্য উপস্থাপন করি। তা যতই কষ্টদায়ক হোক না কেন। আমরা চাই আমাদের নতুন প্রজন্ম সঠিক শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে এদেশের হাল ধরুক। সবধর্মেই শান্তির কথা বলা আছে। তা আমাদের খুজে বের করতে হবে এবং বের করার উপায় জানতে হবে। এটির জন্যই আজকের এই আয়োজন। সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৌফিকুল ইসলাম বলেন, সরকার এখন দৃঢ় হস্তে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছে। তবে শান্তি নষ্টকারী একটি চক্র এখনো সুপ্তাবস্থায় রয়েছে। এদেরকে কখনোই সুযোগ দেয়া যাবে না। আমরা যারা উপস্থিত রয়েছি তারে প্রতি আহ্বান থাকবে, আমরা নিজেরা বিরত থাকব এবং যারা জড়িত তাদের সম্পর্কে কোনো তথ্য পেলে যেকোনো প্রতিষ্ঠান প্রধানকে অথবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানাব। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে যাতে আমার দ্বারা আমার চারপাশের কারো ব্যাঘাত না ঘটে, তিনি যেন অসন্তুষ্ট না হন। শিক্ষার মূল উদ্যেশ্য হচ্ছে বিনয়। একজন বিনয়ী কখনো খারাপ কাজ করতে পারে না। আমরা যারা শিক্ষার্থী, অভিভাবক রয়েছি, আমাদের সন্তানদের প্রতি চেষ্টা করব, তারা যাতে খারাপ কাজে জড়িয় না পড়ে। কোনো অশান্তির সৃষ্টি হয়। আমি দেখছিলাম সিঙ্গাপুরে একটি চুইংগাম খেয়ে কেউ ফেললে তাকে ১ হাজার ডলার প্রথমবার জরিমানা করা হয়। তার দ্বারা আবার একই কাজ হলে ১০ হাজার ডলার জরিমানা। আমরা বাইরে গেলে খুজি কাগজটি কোথায় ফেলব। তাই আজকের যে মুলমন্ত্র তা সবাই বুকে ধারণ করবেন এই আহ্বান করছি। সভাপতির বক্তব্যে প্রধান শিক্ষক হাসিনুর রহমান বলেন, আমরা সব সময়সময় শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করব গোটা বিশ্বে হঠাৎ করে জঙ্গীবাদের উগ্রতার সৃষ্ঠি  হয়েছে। শুধু তৃতীয় বিশ্বের দেশ নয় যেসব দেশকে আমরা উন্নয়নের মডেল হিসেবে গ্রহণ করি তাদের দেশেও উগ্রতা বেশি। অবশ্যই আমরা শান্তি চাই। আমরা উগ্রতা চাই না। আমি প্রায় একটা কথা বলি, আমি বাবা-মায়ের পর শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞ, যার জন্য আমি আজ এখানে। শিক্ষার্থীরা বাবা-মায়ের পর শিক্ষকদের অনুকরণ করে, তারা যা বলে তা মেনে চলে। আমরা সমাজব্যবস্থায় শিক্ষকদের অবদান অনেক। আমি শিক্ষকদের অনুরোধ করব, আমাদের চলন যেন আদর্শ হয়, অনুকরণ করে, তারা যা বলে তা মেনে চলে। আমি শিক্ষার্থীদের বলব, ভালোর পথে থাকো, খারাপকে না বলো। পরিবারে একজন উগ্র হলে পুরো পরিবারকে অশান্তি ভোগ করতে হয়। পরিবারে হলে পুরো পাড়া নষ্ট হয়। আর পাড়া নষ্ট  হলে সমাজ, দেশ তথা বিশ্বে তা ছড়িয়ে পড়ে। তখন শিশুরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগে এবং বড়রা সিদ্ধান্তহীনতায় পড়ে যায়। আমরা কথায় নয় কাজে দেখাতে চাই। আমার শান্তি আমি নিজে করব।

সভায় নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক শাহনাজ বেগমের সঞ্চালনায়, আরো উপস্থিত ছিলেন, নামো সংকরবাটি হেফজুল উলুম এফকে কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ড. এমরান হোসেন, পীস প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বয়কারী মুহাম্মদ আব্দুল বারী, নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সদস্য প্রকৌশলী হাদিকুল ইসলাম, উপজেলা ফিল্ড অফিসার সেলিম রেজা ও জহুরুল হকসহ ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক-সহকারী প্রধান শিক্ষকসহ ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী। বেসরকারি সংস্থা রূপান্তরের সহযোগিতায় জেলার উন্নয়ন সংস্থা প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি এই কর্মসূচির আয়োজন করে। উল্লেখ্য, সপ্তাহব্যাপী ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে আগামী সোমবার জেলার গোমস্তাপুর উপজেলায় আন্তর্জাতিক শান্তি দিবসের কর্মসূচি পালন হবে।