আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে কাল শেষ হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা

33

প্রতি বছর গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ব ইজতেমা। দেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসুল্লি টঙ্গীর তীরে ইজতেমায় অংশ নেন। এছাড়াও সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, কাতার ও আফগানিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের হাজার হাজার মুসুল্লি বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেয়। রোববার ১১ ফেব্রুয়ারি বাদ ফজর বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা মুফতি মাকসুদ। পরে তার বয়ান বাংলা তর্জমা করবেন মাওলানা আব্দুল্লাহ। এর পরেই হেদায়েতের কথা ও আখেরি মোনাজাত শুরু হবে। বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন নিজামুদ্দিনের অনুসারী মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ।এক ময়দানে থাকা-খাওয়া এবং রাত্রিযাপন সহ আল্লাহকে রাজি খুশি করাতে আমল করেন এসব মুসল্লিরা। ইজতেমা ময়দানে বসে শুনেন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় সব মাওলানাদের বয়ান। তবলিগ জামাত আয়োজন করেন এই বিশ্ব ইজতেমার। এটি ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমা। দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ব ইজতেমা। প্রথম পর্বে শুরায়ে নিজাম অনুসারী মুসল্লিরা এবং দ্বিতীয় পর্বে নিজামুদ্দিন অনুসারী মুসল্লিরা বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেন।এর আগে গত ১ ফেব্রুয়ারি আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। পরে ৪ ফেব্রুয়ারি আখেরি মোনাজাতে শেষ হয় প্রথম পর্বের আনুষ্ঠানিকতা।এরপর গত ৮ ফেব্রুয়ারি শুরু হয় দ্বিতীয় পর্বের আনুষ্ঠানিকতা। আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে আগামীকাল রোববার ১১ ফেব্রুয়ারি শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারি দুপুর পর্যন্ত বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেওয়া মুসল্লিদের মধ্যে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।