অতিধনী বেড়েছে ৪৬ হাজার, সম্পদ বেড়েছে শীর্ষ ধনীদেরও

11

গত বছর বিশ্বে অতিধনীর সংখ্যা বেড়েছে ৪৬ হাজার। ফলে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ১৮ হাজারে। যাদের সম্পদের মূল্য ৫০ মিলিয়ন বা পাঁচ কোটি ডলার তাদেরকেই বলা হচ্ছে অতিধনী। আর গত দুই বছরে এই অতিধনীর সংখ্যা ৫০ শতাংশের বেশি বেড়েছে।

সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক বিনিয়োগ ব্যাংক ও আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ক্রেডিট সুইস এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে।

গত বছর দ্রুতগতিতে বিশ্বে ধনী মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। বাড়ির মূল্য বৃদ্ধি ও স্টক মার্কেটের উল্লম্ফন কারণে এটা হয়েছে। গত বছর ৫২ লাখ মানুষ মিলিয়নেয়ার হয়েছে যার অর্ধেকই যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। এই শতাব্দীতে এক বছরে এক দেশে ধনীর এ সংখ্যাবৃদ্ধি রেকর্ড সৃষ্টি করেছে।

গত মঙ্গলবার প্রকাশিত প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ২০২১ সাল শেষে বিশ্বে মিলিয়নেয়ারের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬২.৫ মিলিয়নে। ২০২১ সালের শেষভাগে বৈশ্বিক সম্পদের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৬৩ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ডলার। ২০২০ সালের সাপেক্ষে সম্পদ বৃদ্ধির হার ৯ দশমিক ৮ শতাংশ।

বিশ্বের শীর্ষ দুই অর্থনীতির দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও চীনে ধনী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। এরপরেই আছে কানাডা, ভারত ও অস্ট্রেলিয়া।

মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে লাখ লাখ মানুষ দারিদ্র্যে নিপতিত হয়েছে। মানুষে মানুষে আরও বেশি বৈষম্য বেড়েছে। ইউক্রেন যুদ্ধ ও মুদ্রাস্ফীতির কারণে এই পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে।

ক্রেডিট সুইসের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, করোনা, যুদ্ধ ও মুদ্রাস্ফীতি সত্ত্বেও বিশ্বের শীর্ষ ১ শতাংশ ধনীর সম্পদের পরিমাণ ২০২০ সালের মতো ২০২১ সালেও বেড়েছে। বিশ্বের ৪৫.৬ শতাংশ সম্পদের মালিকানাই তাদের হাতে।